Logo

করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে আড়াইহাজারে গণবিজ্ঞপ্তি জারি

 করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে আড়াইহাজারে গণবিজ্ঞপ্তি জারি

দেশের আলো নিউজ : আড়াইহাজার উপজেলা ২টি পৌরসভা ও ১০টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। এই উপজেলায় ৭ লাখ লোকের বসবাস। করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে এখানে শুরু থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সতর্ক অবস্থানে আছেন।

 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ হোসেন এ্যাসিল্যান্ড উজ্জল হোসেনের সার্বক্ষণিক তৎপরতায় স্থানীয় বাজারগুলোতে দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল অবস্থা আছে। তবে আশার কথা এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস আক্রান্ত কোনো রোগীর খবর পাওয়া যায়নি।

সংক্রমণ রোধে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় স্থানীয় বাসিন্দারা নিজেদের উদ্যোগে লোকজনের চলাচল কিছুটা নিন্ত্রয়ণ করতে শুরু করেছেন। বিভিন্ন গ্রামের প্রবেশ পথে এরই মধ্যে বাঁশ দিয়ে কিংবা গাছের গুড়ি ফেলে অন্য এলাকা থেকে আগত যানবাহন চলাচলে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন। এতে মানুষের মধ্যে কিছুটা হলেও সচেতনতা আসবে।

এদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ হোসেনের স্বাক্ষরিত একটি গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রতিদিন সকাল ৬টা থেকে বেলা ১০টা পর্যন্ত ওষুধ, কাঁচাবাজার, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা রাখা যাবে। সকাল ১০টার পরে ওষুধ ব্যতিত সকল প্রকার কাঁচাবাজার, দোকানপাট, হাটবাজার পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়। জরুরি পরিসরে বিদ্যুৎ, পানি. গ্যাস, ফায়ারসার্ভিস, পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট, কৃষিপণ্য, সার-কীটনাশক, জ্বালানি, সংবাদপত্র, খাদ্য, শিল্পপণ্য, চিকিৎসা সরঞ্জামাদি, জরুরি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পরিবহন ব্যতিত সকল প্রকার যানবাহন বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

অপরদিকে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিটি ওয়ার্ডের সাধারণ সদস্যকে প্রদান করে ১২ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ হোসেন বলেন, আমি জানতে পেরেছি সংক্রমণ মুক্ত থাকতে কিছু এলাকায় লোকজন স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে মানুষের চলাচল কিছু নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন। এলাকায় প্রবেশের রাস্তায় আটকে দিয়েছেন। তবে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এমন কোনো নির্দেশনা প্রদান করা হয়নি। বিষয়টি খোঁজখবর নিচ্ছি।

আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের ওয়ার্ড মেম্বারকে প্রদান করে কমিটি করা হয়েছে। তারা প্রতিমুহূর্তের পরিস্থিতি পুলিশকে অবহিত করবে। এলাকায় করোর করোনা উপসর্গের সন্দেহ হলে তারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ পুলিশকে জানাবেন।

হাইজাদী ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড সদস্য হান্নান বলেন, ১২ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা এলাকায় লোকজনের অবাধ চলাচলের বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করবেন। পাশাপাশি করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে এলাকায় প্রচার-প্রচারণা চালাবেন।

আড়াইহাজার থানার এসআই রুপন বলেন, আমার তত্ত্বাবধানে হাইজাদী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছি। তারা আমাদের করোনা পরিস্থিতির আপডেট জানাবেন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *