Logo

লোকসমাগম ঠেকাতে আড়াইহাজারে প্রশাসনের নানামুখী পদক্ষেপ

লোকসমাগম ঠেকাতে আড়াইহাজারে প্রশাসনের নানামুখী পদক্ষেপ

এম এ হাকিম ভূঁইয়া, বিশেষ প্রতিনিধি:
বৈশ্বিক সমস্যা প্রাণঘাতি (কোভিড-১৯)এর ছোবলে ক্রমেই আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে। এরই মধ্যে একবছর বয়সি এক শিশুসহ এ পর্যন্ত আটব্যক্তির শরীরে করোনা সংক্রমণ হয়েছেন। এতে লোকজনের মাঝেও সংক্রমিত হওয়ার শঙ্কা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে সংক্রমণ রোধে উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় পুলিশ প্রশসানের পক্ষ থেকে পর্যায়ক্রমে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। লোকসমাগম ঠেকাতে এরই মধ্যে সাপ্তাহিক হাট বন্ধের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বাজারগুলোতে ঔষুধের ফামের্সী ব্যতিত সব ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখারও নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। সকাল ৬ থেকে বেলা ১০টার মধ্যে কাঁচা বাজারসহ নিত্যপণের বিভিন্ন দোকানে বেচাকেনায় সময় বেঁধে দেয়া হয়। লোকসমাগম ঠেকাতে সর্বশেষ স্থানীয় বাজারগুলোতে কাঁচা বাজার, মাছ ও মাংস পট্রি বড় পরিসরের স্থানে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে। আড়াইহাজার পৌরসভা বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, লোকসমাগম ঠেকাতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এরই মধ্যে কাঁচাবাজার বড় পরিসরের স্থানে সবজিসহ নিত্যপণ্যের দোকান সরিয়ে নেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তিন ফুট দ্রæরত্বের মধ্যে দোকান বসানোর নির্দেশনাও প্রদান করা হয়। এ ছাড়াও লোকজনের জটলা ঠেকাতে ভ্যানগাড়িতে করে এলাকায় ফেরি করে সবজি বিক্রিরও নির্দেশনা দেয়া হয়। এরই মধ্যে সবজি বিক্রেতারা বিভিন্ন এলাকায় ভ্যানে করে বিক্রি করতে শুরু করেছেন। এতে কমে যাবে মানুষের জটলা। কমবে সংক্রমণ ঝুঁিকও। করোনা সংক্রমণ ঝুঁকি এড়াতে এই নির্দেশনাকে স্বাদুবাদও জানিয়েছেন কেউ কেউ। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে; যা রীতিমত সবার মাঝে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। আড়াইহাজার থানা শ্রমিকলীগের সহসভাপতি লিয়াকত হোসেন বলেন, লোকজনের মধ্যে এখনো পুরোপুরি সচেতনতা আসেনি। আমাদের মাঝে ক্রমেই বাড়ছে করোনা সংক্রমণ আতঙ্ক। তবে লোক সমাগম ঠেকাতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। শুরু থেকেই স্থানীয় সাংবাদিকদের একটি অংশ বিশেষ করে আড়াইহাজার রিপোর্টার্স ক্লাবের সাংবাদিকরা প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে লোকজনকে সচেতন করার চেষ্টা করছেন। এতে লোকজন উপকৃত হচ্ছেন। এরই মধ্যে স্থানীয় বিভিন্ন সাপ্তাহিক হাটে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, বড় পরিসরের বিভিন্ন স্থানে সবজি, মাছ ও মাংসের পট্রি সামাজিক দ্রæরত্ব নিশ্চিত বসানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এতে লোকজনের গাদাগাদির অবস্থা কমে যাবে। সামাজিক দ্রæরত্ব বজায় রাখাও সম্ভব হবে। এতে করোনা সংক্রমণ ঝুঁকিও কমবে। এই সিদ্ধান্তকে স্বাদুবাদ জানাচ্ছি। পৌরসভা বাজারের সবজি ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম বলেন, উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশনা মেনে সবজি দোকান সরিয়ে নিয়েছি। করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে লোকজনের ভিড় কমাতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সঠিক সিদ্ধান্তই গ্রহণ করা হয়েছে। অতিরিক্ত লোক সমাগমের ফলে ক্রেতা কিংবা বিক্রেতা সবাই সংক্রমণ ঝুঁকিতে ছিলাম। আড়াইহাজার উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ হোসেন বলেন, সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করণের লক্ষ্যে মাছ বাজার, সবজি, ফল ও পান সুপারি বাজার পার্শ্ববর্তী স্কুলের মাঠ, খেলার মাঠ বা ঈদগাহ মাঠে স্থানান্তরের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, কেউ যদি মনে করেন ভ্যান গাড়িতে সবজি নিয়ে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করে এলাকায় ফেরি করেও বিক্রি করতে পারবেন। আড়াইহাজার থানার ওসি তদন্ত আমীর হোসেন বলেন, লোকসমাগম ঠেকাতে ও সামাজিক দ্রæরত্ব নিশ্চিত করতে পুলিশ সদস্যরা এলাকায় টহল দিচ্ছেন

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *