Logo

আজ পহেলা মে, মহান মে দিবস

 আজ পহেলা মে, মহান মে দিবস

আজ পহেলা মে, মহান মে দিবস। শোষণের বিরুদ্ধে শোষিত মানুষের অধিকার আদায়ে ঐতিহাসিক সংগ্রামের দিনটাই হচ্ছে মহান মে দিবস। পৃথিবীর সব দেশে যথাযথ মর্যাদার সাথে ঐতিহাসিক মহান মে দিবস পালন করবে দুনিয়ার সকল মজদুর মানুষ। যাদের রক্ত ও ঘামের বিনিময়ে আজকের আধুনিক বিশ্বের এ যান্ত্রিক বিশ্বায়ন সেই যান্ত্রিক বিশ্বায়নের নির্মাতা দুনিয়ার সব শ্রমজীবী মানুষের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা, সম্মান ও লাল সালাম নিবেদন করছি এই লেখার মধ্যদিয়ে।
আজ বাংলাদেশে সরকারি ছুটি। দেশের রাজনৈতিক সামাজিক ও শ্রমজীবী সংগঠনগুলো মে দিবস পালন করবে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে।
জুলুমের বিরুদ্ধে মজলুমের জয় হবেই একদিন না একদিন। তাই ‘দুনিয়ার মজদুর এক হও লড়াই কর’ শ্লোগানটি মে দিবসে ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করে। লড়াইয়ের শুরুটা হয়েছিল ১৮৮৬ সালে পহেলা মে। এই দিন আমেরিকার শিকাগো শহরে হে মার্কেটে। মানবের প্রতি দানবীয় শ্রমঘন্টার বিরুদ্ধে ৮ ঘন্টা কাজের দাবিতে সেই দিন লক্ষ-লক্ষ মানুষ ন্যায্য অধিকার আদায়ে সমবেত হয়েছিল শিকাগোর হে মার্কেটে। ১লা মে’র শিকাগো ধর্মঘট শেষ পর্যন্ত রক্ত সংগ্রামে পরিণত হয়। পহেলা মে ধর্মঘট এক পর্যায়ে অবস্থান কর্মসূচিতে পরিণত হয়। অব্যাহত ধর্মঘট চলাকালে ৩ মে রাজপথের বিক্ষোভ মিছিলে শাসক গোষ্ঠির পুলিশি অভিযানে প্রাণ হারান ৫ জন কর্মবীর শ্রমিক। নিরস্ত্র শ্রমজীবী মানুষের উপর অস্ত্রধারী পুলিশের হামলার প্রতিবাদে বিশ্বের শ্রমজীবী মানুষ সোচ্চার হয়ে উঠে। পরে ১৮৯০ সালে গ্রেট ব্রিটেনের হাইড পার্কে লাখো শ্রমিকের সমাবেশে মে দিবস পালন করা হয়। এর আগে ১৮৮৯ সালে প্যারিসে ২য় আন্তর্জাতিক সম্মেলনে আন্তর্জাতিকভাবে ১লা মে মহান মে দিবস পালনের সিদ্ধান্ত হয়। ধীরে-ধীরে ১লা মে শ্রমজীবী মানুষের প্রতি সংহতির প্রতীক হিসেবে মহান মে দিবস পৃথিবীর দেশে-দেশে যথাযোগ্য মর্যাদা লাভ করে, সেই থেকে মহান মে দিবস পালন করা হচ্ছে। কিন্তু দুঃখ ও পরিতাপের বিষয় হচ্ছে এ যেন দিবস আছে রজনী নেই, শোষণ বঞ্চনা ও অমানুষিক নির্যাতন যেন শ্রমজীবীর মানুষের পিছু ছাড়ছে না।  কেবল দিবস আসলেই আমরা শ্রমজীবী মানুষের ন্যায্য অধিকারের কথা বলি কিন্তু বাস্তবে মজদুর মেহনতি মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে  মালিকগোষ্ঠি আদৌ আন্তরিক হতে পারিনি। যদিও সময়ের ব্যবধানে শ্রমজীবী মানুষের যান্ত্রিক বিপ্লবের কারণে কাজের পরিবর্তন এসেছে। কিন্তু পরিবর্তন আসেনি জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে।   দেশের শ্রমজীবী মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে মহান মে দিবসের বাণী যেন বাণী না হয়ে আশার বাণী হয়


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *