Logo

কালিয়ায় ইউপি সদস্য খুনের মামলায় চেয়ারম্যান গ্রেফতার

কালিয়ায় ইউপি সদস্য খুনের মামলায় চেয়ারম্যান গ্রেফতার

মোঃ জিহাদুল ইসলাম, নড়াইল সংবাদদাতা:  নড়াইলের কালিয়ায় চাঞ্চল্যকর কাইয়ূম সিকদার হত্যা মামলার প্রধান আসামি কলাবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মাহামুদুল হাসান কায়েসকে র‌্যাব-৬ গ্রেফতার করেছে । শুক্রবার (৫ জুন) সকালে গ্রেফতারকৃত আসামীকে নড়াগাতি থানায় হস্তান্তর করা হয়। বৃহস্পতিবার (৪ জুন) বিকাল ৫ টায় র‌্যাব-৬,সিপিসি-৩ যশোর ক্যাম্পের একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে যশোরের বেজপাড়া প্রধান সড়কের পুজার মাঠের নিকটে চেয়ারম্যানের স্ত্রী’র বসবাস করা একটি ভাড়া বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আসামি মাহামুদুল হাসান কায়েসকে শুক্রবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এর আগে গত ২৬ মে রাত পৌনে ৯ টার দিকে কলাবাড়িয়া ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের সদস্য ও সাবেক জাতীয় কাবাডি খেলোয়াড় এবং স্থানীয় আ’লীগ নেতা আব্দুল কাইউম সিকদার মোটরসাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে উপজেলার কালিনগর গ্রামে পথ আটকে আক্রমণ করে এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা। এ সময় তাঁর সঙ্গী গুরুতর আহত নড়াগাতি থানা কৃষকলীগের সভাপতি ও কলাবাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা আবুল হাসনাত মোল্যা (৩৮),সজিব মল্লিক (২৫) ও মতিয়ার মল্লিক (৪০) খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে মো.নাইমুল ইসলাম মিল্টন বাদী হয়ে ২৯ মে নড়াগাতি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় কলাবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো.মাহামুদুল হাসান কায়েসসহ ৪৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ১০/১৫ জনকে আসামি করা হয়। নিহত কাইয়ুম বাংলাদেশ পুলিশ দলের খেলোয়াড় ছিলেন। ১৯৯৯ সাফ গেমস ও ১৯৯৮ এশিয়ান গেমসে বাংলাদেশ দলের জার্সিতে খেলেছেন। তিনি নড়াগাতি থানার বিলাফর গ্রামের হাসমত সিকদারের ছেলে । স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যান কায়েসের সমর্থিত কলাবাড়িয়া ইউনিয়ন আ’লীগ নেতা সবুর মোলা-সবুর ফকির গ্রুপ এবং ইউপি সদস্য কাইয়ূম সিকদার-হাসনাত গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব-লড়াই চলে আসছিল। এ দ্বন্দ্বের জেরে দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে গত বছর সবুর মোল্যা-সবুব ফকির গ্রুপের কটাই নামে একজন নিহত হয়েছিলেন। এছাড়া ইতিপূর্বে খুন জখমের একাধিক ঘটনায় দু’পক্ষে অনেক মামলা মকদ্দমা চলমান রয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় খুন হন কাইয়ুম ও হামলার শিকার তাঁর তিন সহযোগী। গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে নড়াগাতি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রোকসানা খাতুন বলেন, আইনী প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

seven − 6 =


Theme Created By Raytahost.Com