Logo
HEL [tta_listen_btn]

বন্দরে ঢাকা টু চট্রগ্রাম মহাসড়কের দু’ পাশে  বিভিন্ন ফ্যাক্টরী বিষাক্ত কালো ধোয়ায় দূষিত হচ্ছে পরিবেশ

বন্দরে ঢাকা টু চট্রগ্রাম মহাসড়কের দু’ পাশে  বিভিন্ন ফ্যাক্টরী বিষাক্ত কালো ধোয়ায় দূষিত হচ্ছে পরিবেশ

 

বন্দর সংবাদদাতা:
নারায়ণগঞ্জের বন্দরে ঢাকা টু চট্রগ্রাম মহাসড়কের দু’ পাশে অবৈধ ভাবে গড়ে উঠা বেশ কয়েকটি ফ্যাক্টরির বিষাক্ত কলো ধোয়ার প্রভাবে দূষিত হচ্ছে পরিবেশ। কলো ধোয়ার প্রভাবের কারনে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে সাধারন মানুষ। মারাত্মক ঝুঁকিতে পরেছে এখনকার স্থানীয় বাসিন্দারা। প্রশাসনের নজরদারি না থাকায় কোন কিছুরই তোয়াক্কা করছে না পরিবেশ দূষনকারি এসব প্রতিষ্ঠানের মালিকরা। দিন যতই যাচ্ছে স্থানীয় জনসাধারন হাপানি শ^াসকষ্টসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে পরেছে। অধিকাশ মিল ফ্যাক্টরী নেই কোন পরিবেশ ছাড়পত্র। বন্দর উপজেলার জাংঙ্গাল এলাকায় গড়ে উঠা ক্যাবল কারখানা র্দীঘদিন যাবত কোন নিয়ম নীতি না মেনেই প্লাষ্টিকের তার পুড়িয়ে তামা বের করার কাজ চালিয়ে আসচ্ছে। প্লাষ্টিকের তার পোড়ানোর বিষাক্ত কলো ধোয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে যায় পুরো এলাকা। এতে করে মারত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে সবুজ গাছপালা। সে সাথে মারাত্মক ঝুঁকিতে পরেছে স্থানীয়রা। বিশেষ করে এ বিষাক্ত ধোঁয়ায় নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে পরেছে শিশু থেকে বৃদ্ধা পর্যন্ত। সরজমিনে দেখা গেছে, পরিবেশ অধিদপ্তর ও স্থানীয় কতিপয় লোকজনদের ম্যানেজ করে মহাসড়কের পাশে গড়ে উঠৈছে এসব ফ্যাক্টরী। প্রয়াই মূল ফটকের সামনে প্রকাশ্যে পোড়ানো হচ্ছে বৈদ্যুতিক ক্যাবল, প্লাষ্টিক দ্রব্যসহ বিভিন্ন রকমের বর্জ্য। ওই কলো ধোয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে যায় গোটা এলাকা। অভিধ ভাবে মহাসড়কের ওপর নিজেদের মালামাল পরিবহনের যানবাহন রেখে সাধারন পথচারিদেও চরম দূভোগ সৃষ্টি কওে রাখা এখন নিয়মের ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে। এ সব মালিকের পিছনে রয়েছে সন্ত্রাসী বাহিনী। স্থানীয় এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, একাধিকবার স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন দপ্তওে অভিযোগ করেও সুফল পায়নি ভূক্তভোগী এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে এসকিউ ফ্যাক্টরী ম্যানেজার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে মোবাইল ফোনে পাওয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By Raytahost.Com