Logo
HEL [tta_listen_btn]

বিরিয়ানি খাওয়ানো হেফাজতের বিরুদ্ধেই নেমেছে ওসমান পরিবার: রফিউর রাব্বি

বিরিয়ানি খাওয়ানো হেফাজতের বিরুদ্ধেই নেমেছে ওসমান পরিবার: রফিউর রাব্বি

নিজস্ব সংবাদদাতা:
সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহবায়ক রফিউর রাব্বি বলেছেন, নারায়ণগঞ্জে এই হেফাজতকে ত্বকীর ঘাতক ওসমান পরিবার বিরিয়ানি, তরমুজ খাইয়েছে। তাদেরকে দিয়ে আমার বিরুদ্ধে মামলা করিয়েছে। ‘কল্লা চাই, ফাসি চাই’ বলে আমার বিরুদ্ধে মিছিল বের করিয়েছে। যখন বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙ্গায় তারা নিয়োজিত হচ্ছে তখন তাদের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছে। তাই প্রশ্ন জাগে, আসলে এটা কী তাদের বিরুদ্ধে রাস্তায় নামা নাকি ভাস্কর্যকে সামনে রেখে তারা তাদের সকল অপকর্ম ঢাকা দিতে চাচ্ছে।মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যার বিচারের দাবিতে আলোজ প্রজ্বালন ও সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। শহরের ডিআইটিতে আলী আহাম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার ও মিলনায়তনে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট এ আয়োজন করে।রফিউর রাব্বি বলেন, বিচারহীনতা এবং গণতন্ত্রহীনতা এক ভয়াবহ পর্যায়ে দেশকে নিয়ে এসেছে। আজকে সরকার কোন অপরাধ বা অপরাধীকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। তারা সা¤প্রদায়িক শক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হচ্ছে। আইন করেও ধর্ষণ বন্ধ করতে পারছে না। যে দেশের দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হচ্ছে। হাজার হাজার কোটি টাকা দেশ থেকে পাচার রোধ করতে ব্যর্থ। সরকার নিজেই এই ব্যর্থতার কলঙ্কের তিলক নিজের কপালে দিয়েছে। এই সা¤প্রদায়িক অপশক্তিকে সরকার বিভিন্ন সময় প্রশ্রয় দিয়েছে।তিনি আরও বলেন, আমরা সকল সা¤প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে। কিন্তু এই ষড়যন্ত্র করে এবং তাদের নিয়ে রাজনীতি করে ক্ষমতায় টিকে থাকার দূরভিসন্ধিরও বিরুদ্ধে আমরা। আজকে ৯৩ মাস অর্থ্যাৎ পৌনে আট বছর হয়েছে ত্বকী হত্যার লাশ উদ্ধারের পরে। কিন্তু আমরা এত বছর পরেও সেই বিচারের দাবিতে এখানে দাড়িয়েছি। অথচ এই সরকারের সংস্থা র‌্যাব তারা ত্বকী হত্যার তদন্ত শেষ করেছে। ২০১৪ এর ৫ মার্চ ত্বকী হত্যার এক বছর হওয়ার এক দিন আগে তারা সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছে ত্বকীকে ওসমান পরিবারের এতজন টর্চার সেলে রেখে হত্যা করেছে। কিন্তু সেই সংবাদ সম্মেলনের কয়েকদিন পরে যখন প্রধানমন্ত্রী বলেন আমি ওসমান পরিবারকে দেখে রাখবো তখন এই বিচারটা বন্ধ হয়ে গেল।প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী সংবিধান ছুয়ে শপথ করেছেন এই বাংলার সকল মানুষকে তিনি দেখে রাখবেন। অথচ তিনি গডফাদার, খুনি পরিবারকে আশ্রয় দিয়ে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর শপথ ভঙ্গ করেছেন। তিনি একাধিকবার বলেছেন, ত্বকীকে কারা হত্যা করেছে তা আমি জানি। জানার পরেও তিনি বিচার করেন নাই। বরং তাদেরকে সরকারে অংশীদার করেছেন।নারায়ণগঞ্জের ত্বকী, আশিক, চঞ্চল, ভুলুসহ সকল হত্যাকান্ডের বিচার দাবি করেন তিনি। নারায়ণগঞ্জের দেওভোগ এলাকার অপহৃত শিশু সাদমান সাকিকে উদ্ধারের দাবি জানিয়ে রফিউর রাব্বি বলেন, ‘সাদমান সাকি অপহরণ মামলাটি পুলিশ, সিআইডি ও পিবিআই তদন্ত করেছে। এত সংস্থা তদন্ত করেও শিশুটির সন্ধান দিতে পারেনি। গত সেপ্টেম্বর মাসে দায়িত্ব দেয়া হলো র‌্যাবকে। যখন রহস্য উদঘাটিত হয় না তখন আমরা এতটুকু বুঝি এর সাথে সরকার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা গডফাদার জড়িত থাকে। সেজন্যে সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা বা তনু হত্যা উদঘাটিত হচ্ছে না। কিন্তু আমরা সব হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনের দাবি জানাই।সংগঠনের সভাপতি ভবানী শংকর রায়ের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন নিহত ত্বকীর পিতা সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রফিউর রাব্বি, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি মাহবুবুর রহমান মাসুম, নাগরিক কমিটির সভাপতি এবি সিদ্দিক, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি জাহিদুল হক দিপু, জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি হাফিজুর রহমান, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়কারী তরিকুল সুজন, সিপিবির সাধারণ সম্পাদক শিবনাথ চক্রবর্তী, উন্মেষের সভাপতি প্রদীপ ঘোষ বাবু, জেলা সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব প্রমুখ। প্রজ্বলিত মোমশিখা হাতে সমাবেশে অংশ নেন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিকসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শাহীন মাহমুদ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By Raytahost.Com