Logo

নিউইয়র্কে না’গঞ্জ জেলা সমিতির বনভোজন

নিউইয়র্কে না’গঞ্জ জেলা সমিতির বনভোজন

নিজস্ব সংবাদদাতা
নারায়ণগঞ্জ জেলা সমিতি নিউইয়র্কের হ্যাকশেয়ার স্টেট পার্কে রোববার (২৮ আগস্ট) মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশে বনভোজন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই বনভোজনে প্রবাসী নারায়ণগঞ্জবাসী পরিবার-পরিজন নিয়ে অংশ নিলে তা পরিণত হয় এক মিলনামেলায়। বনভোজনে প্রবাসী নারায়ণগঞ্জবাসী ছাড়াও নিউইয়র্ক বাংলাদেশ সোসাইটির কর্মকর্তা এবং মূলধারার রাজনীতিকরা উপস্থিত ছিলেন। তাদের মধ্যে উল্লেখ যোগ্যরা হলো, নিউইয়র্ক ডেমক্রেট পার্টির ডিস্ট্রিক্ট এট লার্জ এটনী মঈন চৌধুরী, বাংলাদেশ সোসাইটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন দেওয়ান এবং সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমীন সিদ্দিকী। বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিকরাও এদিন বনভোজনে অংশ নেন। তারা নাগরিক কোলাহল ছেড়ে বনের ছায়ায় গল্প-আড্ডায় মেতেছিলেন। বনভোজনের উদ্বোধন করেন, সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. মতিউর রহমান। তিনি বেলুন উড়িয়ে বনভোজনের উদ্বোধন করেন। এ ময় সংগঠনের উপদেষ্টা এবং কর্মকর্তারা তার পাশে উপস্থিত ছিলেন। বনভোজনে শুভেচ্ছা বক্তব্য অনুষ্ঠানে সংগঠনের উপদেষ্টা আর্শাদুল বারী আসাদ, মোহাম্মদ মহসীন ও মোহাম্মদ সাঈদ শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। এছাড়া বনভোজনে আগতদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ মজিবর ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা জামাল টিটু। বনভোজনকে সাফল্যমÐিত করায় সংশ্লিষ্ট সকলকে অভিনন্দন জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, বনভোজন কমিটির আহবায়ক মো. আব্দুল আউয়াল,সদস্য সচিব সাদেকুর রহমান লিখন ও সার্বিক তত্ত¡াবধায়ক দর্পণ কবীর। নারায়ণগঞ্জ জেলা সমিতির বনভোজনে ছিল বিভিন্ন বয়সের ছেলে-মেয়েদের খেলাধুলা, নারীদের মিউজিক্যাল পিলো খেলা এবং পুরুষদের গোল করার প্রতিযোগিতা। শিশুদের খেলাধুলার মধ্যে ছিল দৌঁড়ে গিয়ে অংক করে সবার আগে ফিরে আসার প্রতিযোগিতা, সুঁইসূতো দৌঁড় প্রতিযোগিতা এবং দৌঁড়ে গিয়ে ৫ বার চক্কর কেটে ফিরে আসার প্রতিযোগিতা। এই খেলাগুলোর পরিচালনা করেন জাতীয় সাবেক ফুটবলার জানে আলম বাবু। বনভোজনের আকর্ষণ ছিল মনোজ্ঞা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং র‌্যাফেল ড্র। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন মরিয়ম মারিয়া এবং মাহফুজা মিতা। এাছড়া কবিতা আবৃত্তি করেন সাদেকুর রহমান লিখন। বনভোজনের মধ্যাহ্ন ভোজের আগে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখতে গিয়ে বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমীন সিদ্দিকী বলেন, প্রবাসে আমরাই একে-অন্যের আত্মীয়। বনভোজন যারাই করুক, অংশ নিতে পারলে আমরাও আনন্দিত হই। তিনি প্রবাসী বাংলাদেশীদের সবসময় ঐক্যবদ্ধ থাকার আহবান জানান। এসময় বক্তব্য রাখতে গিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. মতিউর রহমান বলেন, বাংলাদেশ সোসাইটির নির্বাচন আসন্ন। আমরা যেন যোগ্য প্রার্থীদের নির্বাচিত করি। সংগঠনের উপদেষ্টা আর্শাদুল বারী আসাদ নিউইয়র্কে নারায়ণগঞ্জ জেলা সমিতির ভবন হবে এমন প্রত্যাশা ব্যক্ত করে বলেন, আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকলে কোন লক্ষ্যই আর অসম্ভব মনে হবে না। তিনি মানুষের পাশে দাঁড়াতে সকলের প্রতি আহবান জানান। সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ মজিবর বনভোজন সফল করায় সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি ভালবাসা প্রকাশ করে বলেন, ন্যায়-নীতি বিবেচনা করে পথ চললে এবং আমরা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকি, তাহলে কোন বাধা টিকতে পারবে না। তিনি বলেন, সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করলে সংগঠনের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়। এই প্রমাণ দিয়ে আমরা আরো এগিয়ে যাব আশা করি। তাদের সংক্ষিপ্ত বক্তব্যের পালা শেষ হলে দুপুরের খাবার পরিবেশন করা হয়। উল্লেখ্য, বনভোজনে সকালের নাস্তা, দুপুরের খাবার ছাড়াও ছিল আম ভর্তা এবং ঝালমুড়ি। এরসঙ্গে ছিল বৈকালিক চা পান পর্ব। প্রবীণ প্রবাসী কালু মিয়া বনভোজনের মাঠে চা তৈরি করে আগতদের আপ্যায়িত করেন।
বনভোজনে আকর্ষণীয় র‌্যাফেল ড্র’র প্রথম পুরস্কার ছিল নগদ এক হাজার ডলার পুরস্কার। এই পুরস্কারটির স্পন্সর ছিলেন মার্কস হোম কেয়ারের ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজুল হক। দ্বিতীয় পুরস্কার ছিল নগদ ৫শ’ ডলার। এছাড়া টিভি, ল্যাপটপ, এ্যাপল ওয়াচসহ আরো আকর্ষণী পুরস্কার দেয়া হয় লটারী বিজয়ীদের। এসব পুরস্কারের স্পন্সর এবং অনুষ্ঠানে অনুদানদাতা হলেন, ডা. শামীম আহমেদ এমডি, হিউম্যান নেটওয়ার্ক এর আর্শাদুল বারী আসাদ, রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীমোশতাক আহমেদ নিউটন, শাহ গ্রæপ এর প্রতিষ্ঠাতা শাহ জে. চৌধুরী, বাংলা ক্লাব এর প্রেসিডেন্টনুরুল আমীন বাবু, বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদকরুহুল আমীন সিদ্দিকী, রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীনুরুল আজিম, বাংলাদেশ সোসাইটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন দেওয়ান, জালালাবাদ এসোসিয়েশন এর সাধারণ সম্পাদক মইনুল ইসলাম, বাংলা ট্রাভেলস এর সিইও বেলায়েত হোসেন বেলাল, এটর্নী মঈন চৌধুরী, জেবিবিএ’রসভাপতিগিয়াস আহমেদ, ফার্মাসিস্ট-রকল্যান্ড কাউন্টিরড. জাফর ইকবাল, রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী জাকির এইচ চৌধুরী, ব্যবসায়ীহাসান জিলানী, মহসীন ননী, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হাটবাজার, ফ্লোরিডার ব্যবসায়ীএম. ডি. সরফরাজ প্রমুখ। বনভোজনে আগতদের বিনামূল্যে কোভিড টেস্ট করা হয়। ৪০ জন কোভিড টেস্ট করিয়েছেন এদিন। বনভোজনে অধিকাংশ মানুষ আসেন নিজেদের গাড়িতে চড়ে। তবে যাদের গাড়ি নেই তারা আসেন বাসে চড়ে। জ্যামাইকা এলাকা (সাগর চাইনিজ রেস্টুরেন্ট) থেকে বাস ছেড়েছিল এবং তারা ফিরেও যান ঐ এলাকায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

two + nine =


Theme Created By Raytahost.Com