Logo
HEL [tta_listen_btn]

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মজিবুরের এডিটেড ছবি!

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মজিবুরের এডিটেড ছবি!

সিদ্ধিরগঞ্জ সংবাদদাতা
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবির সঙ্গে এডিট করে নিজের ছবি বসানোর অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে। বুধবার (২ নভেম্বর) রাতে মোহাম্মদ মজিবুর রহমান নামে এক ফেসবুক পেজ থেকে একটি পোস্ট দেয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের ১নং ওয়ার্ড সদস্য মজিবুর রহমান। তার দেয়া ওই পোস্টে লিখেছেন ফুলের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। সমালোচনার মুখে পড়া ওই ছবিতে দেখা যায়, একটি স্টেজের উপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি মজিবুর রহমান দাঁড়িয়ে আছেন। তবে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও সচেতন মহলের দাবি, সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নেত্রীর ছবির সঙ্গে নিজের ছবি এডিট করে মানুষকে বোকা বানাচ্ছেন মজিবুর রহমান। তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর পাশে দাঁড়ানো ব্যক্তি মজিবুর রহমান নয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। একজন সিনিয়র নেতা হওয়া সত্তে¡ও মজিবুর রহমানের এমন কাজ অশোচনীয়। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক আওয়ামীলীগ কর্মী বলেন, মজিবুর রহমান একজন ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতা। দীর্ঘ ৩২ বছর ধরে তিনি একটানা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। কিছুদিন পূর্বে তিনি জেলা পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। তার দ্বারা এমন প্রতারণামূলক কাজ আমরা আশা করিনি। এটা খুব দুঃখজনক। এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের ১নং ওয়ার্ড সদস্য মজিবুর রহমান জানান, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা কথা। এটা কোনো এডিট করা ছবি না। এটা সত্যিকারের ছবি। যারা দাািব করছে এটা এডিট করা ছবি, তাদেরকেই জিজ্ঞেস করেন এই ছবি কিভাবে এডিট হলো। সে দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জড়িত। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার ছবি থাকতেই পারে। এই ছবিটি আওয়ামী লীগের একটা অনুষ্ঠানে তোলা। যে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছিলেন আর আমি অনুষ্ঠানের সভাপতি ছিলাম। তার রক্তে আওয়ামী লীগ আছে, তিনি এইসব এডিট করা ছবির মধ্যে নেই।
তিনি আরো বলেন, আমি এতো কষ্ট করে জেলা পরিষদের সদস্য হলাম। আমাকে নিয়ে এতো খারাপ কিছু লিখেন কেনো? ভালো কিছু তো লিখতে পারেন। আমি দীর্ঘদিন ধরে জনগণের উন্নয়নে, মানুষের কল্যাণে কাজ করছি। যদি জেলা পরিষদের ১নং ওয়ার্ডে জাহাঙ্গীর (তার প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থী) নির্বাচিত হতো তাহলে সে লুটেপুটে খেতো। আমিতো সুন্দরভাবে কাজ করে যাচ্ছি, কোনো চাঁদাবাজি করি না। তাহলে আমাকে নিয়ে ভালো কিছু লিখেন না কেনো?এ ব্যাপারে ক্ষোভ প্রকাশ করে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আশপাশের আওয়ামী লীগসহ অন্য রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের উপর আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা ও চাঁদাবাজি করার জন্য মজিবুর প্রধানমন্ত্রীর সাথে দাঁড়িয়ে থাকা ওবায়েদুল কাদের ভাইয়ের গলা কেটে ফটো এডিট করে নিজের মাথা বসিয়েছে। দেখলে স্পষ্ট ভাবেই বোঝা যায় এটা এডিট করা। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। আমি এই বিষয়টি দলের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম ভাই ও নানক ভাইসহ বাকিদের জানাবো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By Raytahost.Com