Logo
HEL [tta_listen_btn]

২১ বছরে‘দেশের আলো’

২১ বছরে‘দেশের আলো’

ডিসেম্বরকে বলা হয় বিজয়ের মাস।দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে ১৬ ডিসেম্বর কাক্সিক্ষত বিজয় ছিনিয়ে এনেছিলো বাংলার দামাল ছেলেরা।‘লিলিপুট ভীতু বাঙালি’র অপবাদকে লাথি মেরে ওরা নামমাত্র অস্ত্রহাতে সর্বাধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত বিশ্বের অন্যতম সেরা প্রশিক্ষিত দীর্ঘদেহী পাকিস্তানী সেনাসদস্যদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে বিজয়ী হয়েছিলো। আর এই বিজয়ের মাসেই ‘দেশের আলো’ পথচলা শুরু করেছিলো। এরপর দেখতে দেখতেই কেটে গেছে ২০ বছর। অনেক চড়াই উতরাই পেরিয়ে ‘দেশের আলো’ আজ ২১ বছরে পা রাখলো। প্রচন্ড আর্থিক অনটনের মাঝেও ‘দেশের আলো’ তার নীতি আর আদর্শ থেকে বিন্দুমাত্র বিচ্যুত হয়নি। কোন অশুভ শক্তির কাছে মাথা নত করে পোষা কুকুরের মতো লেজ নাড়াতেও শেখেনি। ডিসেম্বর আমাদেরকে অন্যায় আর অসত্যের বিরুদ্ধে লড়তে শিখিয়েছে। পাঠকের কাছ থেকে আমরা সাহসী হওয়ার দীক্ষা নিয়ে ভয়কে জয় করতে পেরেছি। আর এ কারণেই বুক ফুলিয়ে বলতে পারি, “আমরা যা দেখি তাই লেখি।” একথা অস্বীকারের উপায় নেই যে, আমাদের জাতীয় জীবনের সবচেয়ে গৌরবোজ্জ্বল অধ্যায় মুক্তিযুদ্ধ। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের তাবৎ বাঙালি সর্বাত্মক যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছিলো।এখন যদি প্রশ্ন করা হয় ; যে স্বপ্ন ও সংকল্প নিয়ে দেশ স্বাধীন হয়েছিলো, তা কি পূরণ হয়েছে? জবাব মিলবে-না হয়নি। কেনো হয়নি? উত্তরতো একটাই-মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে গড়িমসির কারণেই আমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়া কঠিন হয়ে পড়েছে। ‘উন্নয়নের মহাসড়কে আজ বাংলাদেশ’ এ কথাটিই এখনঅনেকের মুখে মুখে ঘুরছে। বিগত বছরগুলোতে সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে চোখে পড়ার মতো বাহ্যিক কিছু অগ্রগতি হলেও দেশে শিল্পায়নের কোন উদ্যোগই নেয়া হয়নি।মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নেও রয়ে গেছে অনেক ঘাটতি। ফলে আজ রাজনীতি থেকে রাজনৈতিক স্বাধীনতা, ন্যায়পরায়ণতা, পরমতসহিষ্ণুতা, নাগরিকদের সমঅধিকার ইত্যাদি মৌলিক বিষয়গুলো পুরোপুরি উধাও হয়ে গেছে। সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা হয়ে গেছে সীমিত। পাশাপাশি সব গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান দুর্বল হয়ে পড়ায় অনিশ্চিত হয়ে গেছে গণতন্ত্র। একইসাথে সরকারের মেয়াদশেষে অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ রাষ্ট্রক্ষমতা হস্তান্তরের স্বাভাবিক প্রক্রিয়াটিও আজ বিলুপ্তপ্রায়। এ অবস্থার উত্তরণ চাওয়াটা কোন অপরাধের পর্যায়ে পড়ে না। আজকের এদিনে আমরা সংবাদমাধ্যমের নিরঙ্কুশ স্বাধীনতাসহ গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে সবল ও সচল দেখার আকাক্সক্ষা প্রকাশ করছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By Raytahost.Com