Logo
HEL [tta_listen_btn]

সপ্তাহের বাজার দর – না’গঞ্জে বেড়েছে চাল ও আলুর দাম

সপ্তাহের বাজার দর – না’গঞ্জে বেড়েছে চাল ও আলুর দাম

নিজস্ব সংবাদদাতা
নারায়ণগঞ্জের বাজারে চাল ওআলুরদাম বেড়েছে। এছাড়া বাজারে অপরিবর্তিত আছে অন্য সব পণ্যের দাম। শুক্রবার (২৩ ডিসেম্বর) সকালে শহরের দ্বিগুবাবুর বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা যায়। শীতকালীন সবজি আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে। আকারভেদে বাঁধাকপি ও ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকায়। শসা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকায়। লম্বা ও গোল বেগুনের কেজি যথাক্রমে ৩০ থেকে ৪০ ও ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। টমেটোর দাম কমেনি। আগের মতোই ৮০ থেকে ৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। শিমের কেজি ৩০ থেকে ৪০ টাকা। করলা ৪০ থেকে ৬০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০, পটল ৫০, ঢেঁড়স ৪০, কচুর লতি ৫০ থেকে ৬০, পেঁপে ২০ থেকে ৩০, বরবটি ৪০ থেকে ৬০ ও ধুন্দুল ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। চালকুমড়া প্রতিটি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা। আর লাউ প্রতিটি আকারভেদে দাম হাঁকানো হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। মিষ্টি কুমড়া অবশ্য কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকায়। এসব বাজারে কাঁচামরিচ প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকায়। এছাড়া কাঁচাকলার হালি বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকায়। লেবুর হালি ১৫ থেকে ২০ টাকা, যা আগের দরই। দ্বিগুবাবুর বাজারের সবজি বিক্রেতা শাহাআলম বলেন, বাজারে সবজির সরবরাহ ভালো। আগের দামে বিক্রি হচ্ছে সবজি। দাম বাড়েনি। এই শীতের মৌসুমে সবজির দাম বাড়ার সম্ভাবনা কম। সবজির দাম অপরিবর্তিত থাকলেও দাম বেড়েছে আলুর। কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩০ টাকায়। ১ সপ্তাহ আগে আলু আরও ৫ টাকা কমে পাওয়া যেত।
দ্বিগুবাবুর বাজারের আলুবিক্রেতা হানিফ বলেন, এবার আলুর উৎপাদন বাম্পার। তবুও দাম একটু চড়া। কেজিতে ৫ টাকা করে বেড়েছে।
এদিকে পেঁয়াজের বাজার দর কেজি প্রতি ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। নতুন পেঁয়াজের দাম ৩৫ টাকা কেজি, রসুনের কেজি ১শ’ থেকে ১শ’ ২০ টাকা। আর এক কেজি আদা কিনতে গুনতে হচ্ছে ১শ’ ২০ টাকা। শুক্রবার বাজারে খোলা চিনি বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ১শ’ ২০ টাকা। প্যাকেটজাত চিনির কেজি ১শ’ ২৫ টাকা ১শ’ ৩০ টাকা। লাল চিনির কেজি ১শ’ ৪০ টাকা। বাজারে খোলা আটার কেজি ৬০ থেকে ৬৫ টাকা। প্যাকেট আটার কেজি ৭০ থেকে ৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ২ কেজির প্যাকেট আটা বিক্রি হচ্ছে ১শ’ ৪৫ টাকা ১শ’ ৫০ টাকায়।এসব বাজারে দেশি মসুরের ডালের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১শ’ ৩০ থেকে ১শ’ ৪০ টাকায়। ইন্ডিয়ান মসুরের ডালের কেজি ১শ’ ২০ থেকে ১শ’ ২৫ টাকা। বাজারে সয়াবিন তেলের লিটার বিক্রি হচ্ছে ১শ’ ৯০ টাকা। ৫ লিটারের বোতল পাওয়া যাচ্ছে ৯শ’ ২৫ টাকায়। এসব বাজারে লবণের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকা। এসব বাজারে আগের দামে বিক্রি হচ্ছে ফার্মের মুরগির ডিম। ফার্মের লাল ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১শ’ ২০ টাকায়। হাঁসের ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ২শ’ ১০ থেকে ২শ’ ২০ টাকা। দেশি মুরগির ডিমের ডজন ১শ’ ৮০ থেকে ১শ’ ৯০ টাকা। বাজারে গরুর মাংস কেজি ৬শ’ ৮০ থেকে ৭শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খাসির মাংসের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮শ’ ৫০ থেকে ৯শ’ টাকায়। সব ধরণের মুরগির দাম কিছুটা কমেছে। ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১শ’ ৫০ থেকে ১শ’ ৬০ টাকা। কমেছে সোনালি মুরগির দাম। কেজি বিক্রি হচ্ছে ২শ’ ৫০ থেকে ২শ’ ৭০ টাকা। লেয়ার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২শ’ ৫০ থেকে ২শ’ ৬০ টাকায়।
বাজারে এ সপ্তাহে চালের দাম বেড়েছে। প্রতি কেজি মোটা চাল গুটি স্বর্ণা বিক্রি হচ্ছে ৫২ থেকে ৬০ টাকায়। পাইজাম বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫৫ টাকায়। বিআর-২৮ চালের প্রতি কেজি ৫৬ থেকে ৬২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এদিকে বাজারে মিনিকেট চাল বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫৮ থেকে ৭৮ টাকার মধ্যে। নাজিরশাইল চাল মানবভেদে পাওয়া যাচ্ছে প্রতি কেজি ৭৪ থেকে ৮৫ টাকায়। বিভিন্ন কোম্পানি প্যাকেটজাত যেসব চাল বিক্রি করে, তা প্রতি কেজি ১শ’ টাকার কাছাকাছি বিক্রি হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By Raytahost.Com