Logo
HEL [tta_listen_btn]

রূপগঞ্জে স্কুলের প্রধান শিক্ষককে পিটিয়ে আহত \ এলাকাবাসীর ক্ষোভ / কার্ডে আ’লীগ নেতার নাম নিচে দেয়ায় তুলকালাম

রূপগঞ্জে স্কুলের প্রধান শিক্ষককে পিটিয়ে আহত \ এলাকাবাসীর ক্ষোভ / কার্ডে আ’লীগ নেতার নাম নিচে দেয়ায় তুলকালাম

দেশের আলো রিপোর্ট
সামান্য ঘটনায় কাঞ্চন পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রসুল কলির চেলা চামুন্ডাদের হাতে একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক পিটুনির শিকার হয়েছেন। প্রধান শিক্ষকের অপরাধ,রূপগঞ্জে একটি ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠানে দাওয়াত কার্ডে অতিথি হিসেবে ওই আওয়ামীলীগ নেতার নাম নিচে দেয়া হয়েছিল।এই অপরাধে ওই আওয়ামীলীগ নেতার হুকুমে তার বাহিনীর সদস্যরা, প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদকে এলোপাথাড়িভাবে পিটিয়ে আহত করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। রোববার (১৯ ফেব্রæয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার কাঞ্চন মধ্য বাজারে এলাকায় অনুষ্ঠানের দাওয়াত দিতে গিয়ে এই হামলার শিকার হন ওই শিক্ষক। হামলার শিকার শিক্ষকের নাম আবুল কালাম আজাদ। তিনি হাটাবো টেকপাড়া এলাকার নুর ইসলামের ছেলে। আবুল কালাম আজাদ সাত্তার জুট মিল মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। আহত শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ জানান, হাটাবো টেকপাড়া এলাকায় একটি ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। ওয়াজ মাহফিল উপলক্ষে দাওয়াত কার্ড তৈরি করা হয়। ওই দাওয়াত কার্ডে প্রধান অতিথি উপস্থিত থাকার কথা ছিল স্থানীয় সংসদ সদস্য পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক। এছাড়া বিশেষ অতিথি ও আমন্ত্রিত অতিথিসহ অনেকেরই নাম রয়েছে। সেখানে অতিথি হিসেবে কাঞ্চন পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রসুল কলির নামও রয়েছে। রোববার দুপুরে কাঞ্চন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রসুল কলিকে কার্ড নিয়ে দাওয়াত দিতে যান আবুল কালাম আজাদ। দাওয়াত কার্ড হাতে পেয়ে গোলাম রসুল কলি রেগে যান। তার রেগে যাওয়ার কারণ জিজ্ঞাসা করায় কলি বলেন, দাওয়াত কার্ডে আমার নাম অতিথি হিসেবে নিচে কেন? এসময় গোলাম রসুল কলিসহ উপস্থিত তার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এক পর্যায়ে গোলাম রসুল কলির সামনেই তার বাহিনীর বাছির, লোহা শাহীন, মতিউর, মতিনসহ ১০/১২ জন মিলে শিক্ষক আবুল কালাম আজাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। এসময় সন্ত্রাসীরা এলোপাথারি ভাবে কিল ঘুষি এবং পিটিয়ে তাকে আহত করে। পরে আশপাশের লোকজন আবুল কালাম আজাদের আর্ত চিৎকারে এগিয়ে আসলে হামলাকারিরা স্থান ত্যাগ করে চলে যায়। পরে আবুল কালাম আজাদকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এদিকে প্রধান শিক্ষকের উপর নেক্কারজনক হামলার প্রতিবাদে শিক্ষক, শিক্ষার্থী অভিভাবক ও এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তারা। এ ঘটনার বিচার না হলে এশিয়ান হাইওয়ে ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে মানববন্ধন, অবরোধসহ বৃহৎ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেয়া হয় এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে। এ বিষয়ে কাঞ্চন পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রসুল কলির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, দাওয়াত কার্ডে অতিথির নাম দেয়া নিয়ে কোন ঝামেলা হয়নি। আবুল কালাম আজাদ নিজের দাপট দেখিয়ে আমাদের ছেলেপেলেদের উদ্দেশ্য করে উল্টাপাল্টা কথা বলেছে, তাই তাকে কয়েকটি চড় থাপ্পর দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। সেখান থেকে আমি তাকে ছাড়িয়ে দিয়েছি। এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েব বলেন, এ ধরণের ঘটনাকে কেন্দ্রে করে এখনো লিখিত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে মামলা রেকর্ড করে আসামিদের গ্রেফতার করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By Raytahost.Com