Logo
HEL [tta_listen_btn]

না’গঞ্জে চাহিদার তুলনায় কোরবানির পশু কম

বাংলাদেশের অন্যতম ধনী জেলা বলা হয় নারায়ণগঞ্জকে। শিল্পকারখানা সমৃদ্ধ এই জেলায় কোরবানিদাতার সংখ্যাও বেশি। তবে, এবার নারায়ণগঞ্জে চাহিদার তুলনায় অর্ধেক রয়েছে কোরবানির পশু। এক্ষেত্রে চাহিদা মেটাতে করতে হবে আমদানি। যদিও শেষ পর্যন্ত কোন ঘাটতি থাকবে না বলে জানিয়েছেন প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা।
জেলা প্রাণীসম্পদ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গতবারের তুলনায় এবার নারায়ণগঞ্জে বেড়েছে কোরবানির পশুর চাহিদা। গতবার নারায়ণগঞ্জে মোট গরু কোরবানি হয় ১ লাখ ৩ হাজার। অন্যদিকে, এবার নারায়ণগঞ্জে কোরবানির পশুর চাহিদা ১ লাখ ৬৬ হাজার ৮শ’ ৩টি। চাহিদার তুলনায় জেলার খামারগুলোতে কোরবানির পশু রয়েছে ৭১ হাজার ২শ’ ৩৫টি।
জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের ৫টি উপজেলায় প্রায় ১০ হাজার খামারি রয়েছেন। তাদের মধ্যে ৪ হাজার ৩শ’ ২৭ জন রেজিস্টার্ড ও বাকিগুলো মৌসুমী খামারি। এসব খামারে খামারিরা ৪৩ হাজার ৬শ’ ৬০টি ছাগল, ১ হাজার ৩শ’ ৩৩টি ভেড়া ও ২৫হাজার ৯শ’ ৮৯টি গরু লালন পালণ করে কোরবানির উপযোগী করে তুলেছেন। এরমধ্যে থ্রিস্টার ফার্ম হাউজ, আরকে অ্যাগ্রো, আমানা ক্যাটেল, তানিয়া ক্যাটেল, খন্দকার ক্যাটেল, ছায়েদ আলী অ্যাগ্রো ও প্রার্থনা অ্যাগ্রো অন্যতম।
নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ ফারুক আহমেদ বলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলাটি ছোট হলেও এটি একটি ঘণবসতিপূর্ণ এলাকা। চাহিদার তুলনায় আমাদের পশু প্রস্তুত আছে ৭১ হাজার ২শ’ ৩৫টি। এরমধ্যে আরও কিছু পশু আনার ব্যবস্থা খামারিরা করছে। আশা করা যাচ্ছে এবারও শেষ পর্যন্ত কোন ঘাটতি থাকবে না। যতটুকু চাহিদা ততটুকু পুরণ হয়ে যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Theme Created By Raytahost.Com