Logo

নারীদেরকে স্বাবলম্বী করতে হবে———- মেয়র আইভী

নারীদেরকে স্বাবলম্বী করতে হবে———- মেয়র আইভী

নিজস্ব সংবাদদাতা:
প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের আওতাধীন টাউন ফেডারেশন ও সিএইচডিএফ এর নবনির্বাচিত কমিটির সদস্যদের শপথ পাঠ করিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। এ সময় সিটি মেয়র বলেন, ‘আপনারা যারা নির্বাচিত হয়েছেন তাদের এই সংগঠনকে বড় করার চিন্তা করতে হবে। তাই আপনাদের রাজনৈতিক দলাদলি বন্ধ করতে হবে। যাদের সংগঠিত করতে চাই তারা যদি সংগঠিত না হয় তাহলে লাভের চেয়ে ক্ষতি হবে। আমি আর ক্ষতি হতে চাই না।’  সোমবার (১১ জানুয়ারি) বিকেলে শহরের ডিআইটিতে আলী আহাম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার ও মিলনায়তনে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ সময় টাউন ফেডারেশনের সভাপতি সালমা সুলতানাসহ ৯ জন এবং সিএইচডিএফের সভাপতি মিতু দেবনাথসহ ১২ জন শপথ বাক্য পাঠ করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিটি মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। আরও উপস্থিত ছিলেন প্যানেল মেয়র-১ আফসানা আফরোজ বিভা হাসান, কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস, কবির হোসাইন, সুলতান আহমেদ, হান্নান সরকার, শারমিন হাবিব বিন্নি, প্রধান সমাজকল্যাণ ও বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তা কে এম ফরিদুল মিরাজ প্রমুখ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারীদের নিয়ে প্রচুর কাজ করছেন মন্তব্য করে সিটি মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, ‘বাংলাদশে ক্রিকেট, ফুটবল, কারাতে, কাবাডি থেকে শুরু করে নারীরা আজ কোথাও পিছিয়ে নেই। আর্মি, পুলিশেও নারী। নারী আজ ট্রেন চালাচ্ছে। এটা সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য। স্থানীয় সরকার বিভাগে সংরক্ষিত নারী আসন চালু করেছেন প্রধানমন্ত্রী। আপনাদের নৈতিক দায়িত্ব দেশের প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করা।’ শহরের মন্ডলপাড়ায় নারীদের কর্মসংস্থানের উদ্দেশ্যে বিউটি পার্লার করে দেবেন জানিয়ে মেয়র বলেন, ‘নারীদের সাবলম্বী করতে হবে। চার কোটি টাকার মালিক সিডিসি। এই টাকাগুলো দিয়ে কিছু করার ইচ্ছে রয়েছে। টাকা ব্যাংকে ফেলে রাখতে চাই না। আমি আপনাদের দশ দিন সময় দিচ্ছি খামে করে আপনারা এই টাকা দিয়ে কী করবেন তা লিখে দিবেন। ফুড বিজনেসে নারায়ণগঞ্জের নারীরা যেন অগ্রাধিকার পায় সে ব্যবস্থা করতে হবে। প্রয়োজনে মেলার ব্যবস্থা করা হবে। আমরা চাই আমাদের মধ্যে থেকে কেউ জয়িতা পুরষ্কার পাক।’ কাউন্সিলরদের উদ্দেশ্যে আইভী বলেন, ‘সিডিসিকে কখনও আপনাদের নির্বাচনে ব্যবহার করবেন না। তাদেরকে কোনো কাজে বাধ্য করবেন না। তাদেরকে তাদের মতো কাজ করতে দিবেন। এই প্রজেক্টের উদ্দেশ্য হলো নারী নেতৃত্ব তৈরি করা, নারীদেরকে স্বাবলম্বী করা এবং সমাজের মধ্যে মানুষ হিসেবে তাদেরকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া। আগে নিজেকে মানুষ হিসেবে ভাবুন তারপর বিবেচনা করুন আপনি নারী নাকি পুরুষ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *