Logo

খাদ্যে ভেজাল বিষয়ে আমাদের সচেতন হতে হবে মেয়র আইভী

স্কুল রচনা প্রতিযোগিতা

খাদ্যে ভেজাল বিষয়ে আমাদের সচেতন হতে হবে মেয়র আইভী

নিজস্ব সংবাদদাতা:
‘জীবন ও স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সকলের জন্য নিরাপদ খাদ্য’ শীর্ষক স্কুল রচনা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহকারী নারায়ণগঞ্জের ৪টি স্কুলের ৪০ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুরস্কার ও সনদ বিতরণ করেছেন সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। রোববার (৬ জুন) দুপুরে শহরের ডিআইটি এলাকায় আলী আহাম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার ও মিলনায়তনে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের আয়োজনে এবং স্থানীয় সরকার বিভাগ, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় ও জাইকা-সিফরসি প্রকল্প এর আয়োজনে ওই প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিও) আবুল আমিনের সভাপতিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী, বিশেষ অতিথি সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ আফসানা আফরোজ বিভা, কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস, কাউন্সিলর শারমিন হাবিব বিন্নী, কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম, ভার্চ্যুয়ালে ভিডিও কনফারেন্সে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের যুগ্ম সচিব ও সিফরসি-জাইকা প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক নূরে আলম সিদ্দিকী, জাইকা বাংলাদেশ অফিস রিপ্রেজেনটিভ হিরোকি ওয়াটানাবে, জাইকা বাংলাদেশ অফিস লোকাল গভার্ণ্যান্সের এ্যাডভাইজার কিয়োহে ইয়ামামোটো মামুন, সিনিয়র প্রোগ্রাম অফিসার সানজিদা হক, টিম লিডার নাওকো আনজাই, ডেপুটি টিম লিডার টাইসুকে টকোকা সহ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীরা। মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, ‘খাদ্যে ভেজাল বিষয়ে আমাদের সচেতন হতে হবে’। যেখানে ভেজাল সেখানেই আমাদের প্রতিবাদ করতে হবে। মানুষ শুনুক আর নাই শুনুক কথাগুলো আমাদের বলতে হবে। আজকে দুধ থেকে শুরু করে সব খানেই ভেজাল। আমরা বাংলাদেশের মানুষ মনে হয় ভুলেই গেছি প্রতিবাদ করতে। আমরা প্রতিবাদ করতে চাই না, সত্য কথা বলতেই চাই না, আমরা সব কিছু এড়িয়ে চলতে চাই। কিন্তু এ এড়িয়ে চলা জীবন না। এখানে যার যার অধিকারের জন্য, তার তার লড়তে হবে, দাঁড়াতে হবে। একজন প্রতিবাদ করলে তার পিছনে ১০জন এসে চেষ্টা করবে।’ মেয়র আইভী আরো বলেন, ‘আমি পৌরসভা আমলে দেখলাম বা ৪ থেকে ৫ বছর আগেও দেখেছি প্রতিদিন একটা অভিযান চলতো। সেটা ডিসি অফিস থেকে করা হতো। আমরা নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনও করতাম। যদিও আমাদের অনেক সীমিত ক্ষমতা। আমরা যেতে পারি, সচেতন করতে পারি কিন্তু আইন প্রয়োগ করতে হলে অভিযানের প্রয়োজন, ম্যাজিস্ট্রেট সহ ডিসি অফিস থেকে এটা করে থাকে। মন্ত্রণালয়ের প্রতি অনুরোধ থাকবে এ অভিযান আরো একটিভ করা যায় কিনা। আগে প্রতিমাসে অভিযান পরিচালনা করা হতো। তিনি বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের এ খাদ্য অভিযানের সীমিত ক্ষমতা। আমরা সচেতন করা সহ বিভিন্ন কার্যক্রম করে থাকি। কোভিডের জন্য বন্ধ ছিল। আমরা খুবশিঘ্রই আবারও শুরু করবো। উল্লেখ্য, জাইকা সহায়তাপুষ্ট সিফরসি প্রকল্পের অধীনে বিগত ২০১৯-২০ অর্থবছরে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে শহরের ৪টি উচ্চ বিদ্যালয়ে এ রচনা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। রচনা প্রতিযোগিতায় মোট ৪২০ জন ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহণ করেন। বিদ্যালয়গুলো হলো-বন্দর গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, বিদ্যানিকেতন হাইস্কুল, বিএনডিইডবিøউ উচ্চ বিদ্যালয় ও মর্গ্যাণ গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ। রচনা প্রতিযোগিতা আয়োজনের পর পরই বিশ্বব্যাপি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে পুরস্কার বিতরণী কার্যক্রম বিলম্বিত হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *